Breaking News
Home / আইনের প্রশ্নসমূহ / ১। পুলিশ এ্যাক্ট ১৮৬১ অনুযায়ী নিবারণমূলক পুলিশী কার্যক্রম সমূহ কি কি ? কোন কোন পদবীর কর্মকর্তা নিবারণমূলক কার্যক্রম গ্রহণ করতে পারেন আলোচনা করুন।

১। পুলিশ এ্যাক্ট ১৮৬১ অনুযায়ী নিবারণমূলক পুলিশী কার্যক্রম সমূহ কি কি ? কোন কোন পদবীর কর্মকর্তা নিবারণমূলক কার্যক্রম গ্রহণ করতে পারেন আলোচনা করুন।

 ১ নং প্রশ্নের উত্তর

প্রশ্নের আলোকে পুলিশ এ্যাক্ট ১৮৬১ অনুযায়ী নিবারণমূলক পুলিশী কার্যক্রম সমূহ নিম্নে আলোকপাত করা হলোঃ

১। পুলিশ এ্যাক্ট ১৮৬১ সালে প্রণীত পুলিশ আইনের ৩৪ ধারা অনুসারে কোনো ব্যক্তি থানার পৌর এলাকার ভিতরে কোনো স্থানে নিম্নলিখত অপরাধসমূহ করলে তাকে বিনা পরোয়ানায় গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ পূর্বক নন-এফআইআর প্রসিকিউশন দাখিল করতে হবে।

  • অনাবৃত জায়গায় গবাদী পশু জবাই করলে।
  • নিষ্ঠুরভাবে কোনো জীব-জন্তুকে মারধর করলে।
  • জনসাধারণের অসুবিধা সৃষ্টি করে রাস্তায় গাড়ী দাড় করে রাখলে।
  • খোলা জায়গায় বিক্রয়ের জন্য মালামাল ফেলে রাখলে।
  • রাস্তায় আবর্জনা ফেলে দুর্গন্ধ সৃস্টি করলে।
  •  মাতাল অবস্থায় রাস্তায় বেড়ালে।
  • রাস্তায় মলমূত্র ত্যাগ করেএল বা কুৎসিচত ব্যাধি প্রদর্শন করলে।
  • পুকুর, কুয়া বা কোনো বিপদজনক জায়গা না ঘিরে খোলা অবস্থায় রাখলে।

২। পুলিশ আইনের ৩৪-ক ধারা অনুসারে থানায় এলাকায় কোনো ব্যক্তি চিত্ত বিনোদন স্থলে দর্শক প্রবেশের টিকেট নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে বিক্রি করলে তাকে বিনা পরোয়ানায় গ্রেফতার করে তা নিবারণ করা। (পিআরবি ২৫৪, ৩১৬ বিধি)

৩। যে কোন অপরাধ সংঘটন সম্পর্কে উর্ধ্বতন অফিসারকে অবগত করা। (পুলিশ আইনের ২৩(৩) ধারা, ফৌঃ কাঃ ১৫০ ধারা, পিআরবি-১২০ বিধি)

৪। থানায় এলাকায় যে কোন ধরণের অপরাধ নিবারণ ও প্রতিরোধ করা, জনগণের বিরক্তিকর কার্য নিবারণ করা, অপরাধের সঠিক তথ্য অনুসন্ধান করা, গ্রেফতারকৃত অপরাধীকে বিচারার্থে আদালতে প্রেরণ করা, আইন সঙ্গতভাবে গ্রেফতারযোগ্য সকল ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে অপরাধ নিবারণ করা। (পুলিশ আইন ২৩ ধারা, পিআরবি ১১৮ বিধি)

৫। যে কোন অপরাধ সংঘটন সম্পর্কে ম্যাজিস্ট্রেটকে সংবাদ দিতে হবে।( পুলিশ আইন ২৪ ধারা, পিআরবি ২১৩ বিধি)

৬। যে কোন শোভাযাত্রা বা সমাবেশ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য লাইসেন্স প্রদান ব্যবস্থা করা।(পুলিশ আইন ৩০ ধারা)

৭। যে কোন বেআইনী সমাবেশ বা দাঙ্গা অনুষ্ঠিত হলে তা ছত্রভঙ্গ হওয়ার আদেশসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা (ফৌঃ কাঃ ১২৭, ১২৮ ধারা,পুলিশ আইন ৩০-ক(১, ২) ধারা, পেনাল কোড ১৪১ ধারা)

৮। যেখানে সর্বদায় জনসমাগম হয় সেই সকল স্থানের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা করার জন্য প্রয়োজনীয় ফোর্স মোতায়েন করা (পুলিশ আইনের ৩১ ধারা)

৯। যে কোন  অপরাধের সংবাদ জিডিতে লিপিবদ্ধ করে অপরাধ নিবারণ করা (পুলিশ আইন ৪৪ ধারা, ফৌঃ কাঃ ১৫৪, ১৫৫ ধারা, পিআরবি ৩৭৭ বিধি)

১০। থানা এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের নিয়ে কমিউনিটি পুলিশিং ব্যবস্থাপনা ও ওপেন হাউজ ডে পদ্ধতি চালুর মাধ্যমে থানার এলাকার যে কোন অপরাধ নিবারণ করা (পুলিশ আইন ১৭ ধারা, পিআরবি ৬৭৪ বিধি)

যে সকল পদবীর কর্মকর্তা নিবারণমূলক কার্যক্রম গ্রহণ করতে পারেনঃ

১। পুলিশ আইনের ৩৪ ধারায় উল্লেখিত অপরাধসমূহ করলে কনস্টেবল হতে ঊর্ধ্বতন পদের যে কোনো পুলিশ অফিসার অপরাধীকে বিনা পরোয়ানায় গ্রেফতার করতে পারেন। (পুলিশ আইন ৩৪ ধারা)

২। আবার পুলিশ আইনের ৩৪-ক ধারার অপরাধসমূহ করলে সাব-ইন্সপেক্টর/সার্জেন্ট ও তার উপরস্থ পুলিশ অফিসারগণ অভিযুক্ত ব্যক্তিকে বিনা পরোয়ানায় গ্রেফতার করে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে নন প্রসিকিউশন দাখিল করা।

পিআরবি ৩১৬ বিধি

print

About masum

Check Also

প্রশ্ন-১৪। গ্রেফতার না করেও কোনো ব্যক্তির দেহ তল্লাশি করার বিধান আছে কি ?

১৪ নং প্রশ্নের উত্তর: উত্তর: নিম্নলিখিত ক্ষেত্রে গ্রেফতার না করেও দেহ তল্লাশি করা যায়ঃ ১। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *